এক ঝলকে মুসলিম আইন

মে ০৯ ২০২০, ০৫:৫৪

Spread the love

মুসলিম আইনের সংজ্ঞা :  মুসলিম আইন মূলত: শরিয়া আইন । কোরআন, হাদীস, ইজমা ও কিয়াস এর ওপর ভিত্তি কর মুসলমানেদের জন্য যে আইন প্রণীত হয়েছে তাকে মুসলিম আইন বলে ।

মুসলিম আইন দ্বারা কী নিয়ন্ত্রিত হয় ? : মুসলিম আইন দ্বারা বাংলাদেশের মুসলমানদের পরিবারিক ও স্বকীয় জীবন প্রাণালী নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে । যেমন: বিবাহ, দেনমোহর, তালাক, খোরপোষ, অভিভাবকত্ব, উত্তরাধিকার, হেবা, অছিয়ত এবং ওয়াকফ ইত্যাদি ।

মুসলিম আইনের উৎস : মুসলিম  আইনের উৎস ৪টি যথা : কোরআন, হাদীস, ইজমা ও কিয়াস ।

মুসলিম আইনে বিবাহ : মুসলিমদের বিবাহ হলো একটি দেওয়ানী চুক্তি । ধর্মীয় বিধান সম্মিলিত ভাষায় বলা যায়, দু’জন পূর্ণ বয়স্ক মুসলিম নর-নারী স্বামী স্ত্রী হিসাবে একসাথে বসবাস করার উদ্দেশ্য নিয়ে সন্তানের জন্মদান এবং সন্তানের লালন পালনের দায় দ্বায়িত্ব বহন করার জন্য, যে চুক্তিতে আবন্ধ হয় তাকে বিবাহ বলে । তবে বিবাহ অবশ্যই রেজিস্ট্রি (কাবিন) করতে হবে । মুসলিম আইনে বিবাহ তিন প্রকার যথা : সহি বিবাহ, ফাসিদ বিবাহ ও বাতিল বিবাহ ।

মুসলিম আইনে যে সকল বিবাহ নিষিদ্ধ :

প্রথম শ্রেণী :  ১. মা/মায়ের মা/যতই উচ্চস্তরের হোক ।  ২. মেয়ে/মেয়ের মেয়ে/যতেই নিম্নস্তরের হোক । ৩. বোন (সহোদর, বৈমাত্রের বা বৈপিত্রের)/বোনের কন্য/বোনের কন্যার কন্যা । ৪. ভাইয়ের কন্যা/বোনের কন্যা/ তাদের কন্যা। ৫.মায়ের বোন/পিতার বোন/তাদের মাতা

দ্বিতীয় শ্রেণী :  ১. স্ত্রী’র মা/দাদী বা নানী/স্ত্রী থাকা কালিন স্ত্রীর বোন ।২. স্ত্রী’র কন্যা/কন্যার কন্যা । ৩. পিতার  স্ত্রী/মাতামহের স্ত্রী। ৪. ছেলের স্ত্রী/ছেলের ছেলের স্ত্রীর/কন্যার ছেলের স্ত্রী । ৫. স্ত্রীর ফুফু ও খালা

তৃতীয় শ্রেণী :  ১. বোনের দুধমাতা/দুধ বোনের মাতা/দুধ ছেলের বোন/দুধ ভাইয়ের বোন ।

দেনমোহর কি ? বিবাহের জন্য স্ত্রীর অধিকার নির্দশন হিসাবে স্বামী স্ত্রী’কে স্থাবর অস্থাবর সম্পদ যা দিয়ে থাকেন তাকে দেন মোহরানা, মোহর বা দেনমোহর বলে । সেটা টাকা ও গহনাগাটি হতে পারে অথবা কোন সম্পত্তি হতে পারে ।ইহা স্ত্রীর কাছে স্বামীর জামানত বিহীন ঋণ । দেন মোহর ২ প্রকার তবলি ও বিলম্বিত ।

তবলি দেনমোহর স্ত্রীর চাহিবামাত্র পরিশোধযোগ্য হয় । স্ত্রী সহবাসের পূর্বে বা পরে যে কোন সময় তার তবলি দেনমোহর দাবি করতে পারে । স্ত্রী ইচ্ছা করলে তবলি দেনমোহর পরিশোধের আগে দাম্পত্য মিলনে অস্বীকার করতে পারে । এছাড়া স্বামীকে তালাক প্রদান করতে পারে ।

বিলম্বিত দেনমোহর সময় নির্ধারণ করা না থাকলে মৃত্যু বা তালাকের পরে পরিশোধ করতে হয় ।

দৈহিক মিলনের পূর্বে তালাক দিলে বা স্বামী মারা গেলে স্ত্রী  দেনমোহরের অর্ধেক টাকা পাবে ।

স্ত্রী তালক দিলেও সে তার দেনমোহর পাবে কারণ এটি বিবাহের শর্ত তালাকের নয় । সুতারং যেই তালাক দিবেনা কেন দেনমোহর স্ত্রীর প্রাপ্য সে তা পাবে । স্ত্রী যদি ইচ্ছা করে তাহলে তার দেনমোহর মওকুফ করতে পারে । দেনমোহরের জন্য পারিবারিক আদালতে সহকারী জজের নিকট মামলা দায়ের করা যায় ।

লেখক : মোঃ জহিরুল ইসলাম, এলএল’বি । কৃতজ্ঞতা: এমএলএলএ । 


Translate »