কোনো সফলতা একার পক্ষে অর্জন করা সম্ভব নয়

প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের নিয়ে ভাবুন

মার্চ ০২ ২০২১, ২১:১১

Spread the love

প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের নিয়ে ভাবুন

আজকের ঝলক :

এনজিও কথন :

সফলতার কথা ভাবুন : প্রতিটি সফলতার পিছনে একজনের অবদান থাকেনা । একটি টিমের প্রতিটি সদস্য’র অবদান থাকে । বেসরকারী সেক্টরের কর্মীরা কতটা নিবেদিত তা বলার অপেক্ষা রাখেনা অথচ প্রতিটি পদে পদে কর্মীরা কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করে ।

প্রাইভেট কোম্পানী বা এনজিও প্রতিষ্ঠারা কর্মীদের পরিশ্রমের ঘামে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানের সুনাম ও লাভের অংশীদার কিন্তু তাদের ভাগ্যে জোটে করুনা । মাঝে মাঝে কিছু প্রনোদনা, ছুটি ও অন্যান্য সুবিধা দিতে যেন মালিক পক্ষের খুব কষ্ট হয় । মালিক পক্ষ যাই হোকনা কেনো কিছু ব্যবস্থাপার লোকজন প্রমন আচরণ করেন যেনো তারা মালিক বনে যান । সেসব ম্যানেজার ভুলে যান কর্মীদের সহযোগিতা ছাড়া তাদের টার্গেট পূরণ করা কখনো সম্ভব নয় ।

কর্মীর ছুটি ও প্রনোদন নিশ্চিত করুন : আমার জানামতে কর্মী সন্তুষ্টুষ্টিই কেবল টার্গেট অর্জনে বড় ভূমিকা রাখতে পারে । আমি দেখেছি কোনো কর্মীকে তার চাওয়ামাত্র ছুটি দিলে ফিরে এসে সে তার ছুটিতে থাকাকালীন সময়ে জমে থাকা কাজগুলো অতিরিক্ত পরিশ্রম করে মিটিয়ে দেয়। আবার ছোট ছোট কিছু প্রনোদনা কর্মীদের কাজের গতি বাড়িয়ে দেয় দিগুন ।

উদাহরণ স্বরুপ বলা যায় কোনো কর্মীর স্ত্রী বা নিজে অসুস্থকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠান তাকে কিছু অর্থ সহায়তা করেছে । যান বাহনের ব্যবস্থা করে দিয়েছে ঐ কর্মী সারাজীবন প্রতিষ্ঠান ও সুপারভাইজারের উপর কৃতজ্ঞ থাকে ।

কর্মীকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করুন :  সবসময় হয়তো টার্গেট অর্জন করা সম্ভব হয়না । আবার মাঝে মাঝে ২০০% টার্গেট অর্জন হতে পারে সুতরাং কোনো এক মাসের অর্জন নিয়ে কর্মীকে ভৎসনা বা মূল্যায়ন করা ঠিক নয় । বাৎসরিক বেতন বৃদ্ধি থেকে কর্মীকে বাদ দেওয়ার অজুহাত না খুঁজে তাকে বেতন বৃদ্ধি করার ব্যবস্থা করুন  । কর্মীকে তার ভুলত্রুটি সুধরে যাওয়ার জন্য তাকে একটি লিখিত পরামর্শ দিতে পারেন ।

কর্মীর Payment সঠিক সময়ে মিটিয়ে দিন :  অনেত প্রতিষ্ঠান আছে যাদের মাস শেষে বেতন দিতে কষ্ট লাগে কিন্তু এটা মোটেও ঠিক নয় মাসের শেষ কর্ম দিবসে বা তার আগেই কর্মীর বেতন ব্যাংক একাউন্টে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন । কর্মীর যাতায়াত, মেডিকেলসহ অন্যান্য বিল সঠিক সময়ে প্রদান করার সংষ্কৃতি গড়ে তুলুন । কোনো কারনে কর্মী সংস্থা ত্যাগ করলে যতদ্রুত সম্ভব তার দেনা-পাওনা মিটিয়ে দিন । মনে রাখবে ডিলে জাস্টিম ডিডাই জাস্টিস । সরকারের উচিত এনজিও নীতিমালাগুলো কঠোর মনিটরিং করা । 

করোনায় চাকুরির ঝুঁকিতে আছেন এনজিও কর্মীরা

 

https://www.youtube.com/watch?v=3FKpbgOS-Hc&list=RD3FKpbgOS-Hc&start_radio=1



আমাদের ফেসবুক পাতা




প্রয়োজনে কল করুন 01740665545

আমাদের ফেসবুক দলে যোগ দিন







Translate »