বিয়েতে রাজি না হওয়ায় কি’শোরী খালাতো বোনকে তুলে নিয়ে ধ*র্ষ ণ!

সেপ্টেম্বর ২৬ ২০২০, ২০:২১

Spread the love

রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক মাদরাসাছা’ত্রীকে ধ*র্ষ ণের অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে অ’ভিযু’ক্ত নাঈম শরীফ ও তার বড়ভাই মহারাজ শরীফকে গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ। গত মঙ্গলবার রাতে ওই কি’শোরী পার্শ্ববর্তী পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ার বলেশ্বর নদী তীরের হরিণপালা ইকো পার্ক ঘুরে বাড়ি ফেরার পথে সংঘবদ্ধ বখাটে কর্তৃক ধ*র্ষ ণের শিকার হয়। গ্রে’প্তারকৃত বখাটে সহোদর উপজে’লার তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের হানিফ শরীফের ছে’লে।

পু’লিশ জানায়, ধ’র্ষিতা মাদরাসাছা’ত্রী ও ধর্ষক মো. নাঈম শরীফ স’ম্পর্কে খালাতো ভাইবোন। নাঈম শরীফ এর আগে বিভিন্ন সময় ওই ছা’ত্রীকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। এ বিষয়ে ওই মাদরাসাছা’ত্রীর বাবা ধর্ষক নাঈমের বড় ভাই মহারাজ ও তার মা তহমিনাকে জানায়। তারা নাঈমকে সর্তক না করে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। তবে এতে রাজি হয়নি মে’য়ের পরিবার।

গত মঙ্গলবার বিকেলে ওই মাদরাসাছা’ত্রী পার্শ্ববর্তী ভান্ডারিয়া উপজে’লায় ইকো পার্কে ঘুরতে যায়। পরে সন্ধ্যায় পার্ক থেকে বাড়ি ফিরে আসার পথে স্থানীয় ফুলঝুড়ি বাজার সড়ক থেকে তুলে নিয়ে একটি পরিত্যক্ত ঘরে আ’ট’কে রেখে ওই ছা’ত্রীর ইচ্ছার বি’রুদ্ধে ধ*র্ষ ণ করে। বাড়িতে ফিরে বিষয়টি ওই ছা’ত্রী তার মা ও তার বড় ভাইকে জানায়। তারা বখাটের পরিবারের কাছে জানালে বিচারের আশ্বা’স দিয়ে ধর্ষককে বাড়ি থেকে পালিয়ে যেতে সহায়তা করে।

এ ঘটনায় ধ’র্ষিতা মাদরাসাছা’ত্রীর বাবা বাদী হয়ে গত বুধবার মঠবাড়িয়া থা’নায় একটি মা’মলা দায়ের করেন।

মঠবাড়িয়া থা’নার পরিদর্শক (ত’দন্ত) আবদুল হক জানান, অ’ভিযু’ক্ত নাঈম ও তার ভাই মহারাজকে গ্রে’প্তার করে আ’দালতের মাধ্যমে জে’ল হাজতে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার ধ*র্ষ ণের শিকার ওই মাদরাসাছা’ত্রীর ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে।


Translate »