বিপুল সম্পদের মালিক তিনি

পাহাড় পরিমান টাকা এমপি পাপুলের

জুন ২৩ ২০২০, ১৮:২৮

Spread the love

আজকের ঝলক নিউজ ২৩ জুন ২০২০

 

শুনে অবাক হবেন দেশে বিদেশে বিপুল পরিমাণ সম্পদ রয়েছে লক্ষ্মীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র এমপি কাজী মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুলের। মানব পাচার ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগে কুয়েতে গ্রেফতারের ঘটনায় তাকে নিয়ে বিশ্ব মিডিয়ায় আলোচনা চলছে। নির্বাচনী হলফনামায় তিনি প্রায় শত কোটি টাকার সম্পদের হিসাব দেখিয়েছেন। এ ছাড়াও কুয়েতে তার ১৩৭ কোটি ৮৮ লাখ ৮৩ টাকার সম্পদ রয়েছে। এ ছাড়া তার স্ত্রী সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলামও তার হলফনামায় প্রায় শত কোটি টাকার সম্পদ দেখিয়েছেন। দুদক খুঁজছে তার শ্যালিকার সম্পদ। সেখানেও মোটা অঙ্কের অর্থবৃত্ত ও স্থাবর সম্পদের ইঙ্গিত মিলেছে। ইসির সূত্রে জানা গেছে, মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুল তার হলফনামায় ৮৯ কোটি ৮৫ লাখ ৭৯ হাজার ৪৯২ টাকা মূল্যের সম্পদ দেখিয়েছেন। আর তার স্ত্রী সেলিনা ইসলাম দেখিয়েছেন ৮২ কোটি ৭০ লাখ ৭৯ হাজার ৪৩২ টাকার মূল্যের সম্পদ। এ ছাড়া কন্যা, শ্যালিকার নামেও রয়েছে বিপুল পরিমাণ সম্পদ। হলফনামার তথ্যে দেখা গেছে, পাপুলের বার্ষিক আয় ৭৩ লাখ ৪১ হাজার ১৭৪ টাকা। এই টাকা তার ব্যাংক আমানত থেকে আসে। এ ছাড়া তার নির্ভরশীলদের কৃষিখাত থেকে আয় ৬ লাখ টাকা, ব্যাংক আমানত থেকে আয় এক কোটি ৪৫ লাখ ২৬ হাজার ৮৩৬ টাকা। এ ছাড়া অস্থাবর সম্পদের মধ্যে তার নামে নগদ টাকা রয়েছে ৩ কোটি ৮৬ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬৩ টাকা; স্ত্রীর নামে রয়েছে ৪ কোটি ১৫ হাজার টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে পাপুলের জমা রয়েছে ৮ কোটি ৬২ লাখ ১৩ হাজার ৮২ টাকা আর তার স্ত্রীর নামে জমা ২০ কোটি ১০ লাখ ২৫ হাজার ৩৩৪ টাকা। পাপুলের বন্ড-ঋণপত্র স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানির শেয়ার রয়েছে ২২ কোটি ৯১ লাখ ৭০ হাজার টাকার আর সেলিনা ইসলামের নামে রয়েছে ১৬ কোটি ২০ লাখ টাকার। এ ছাড়াও পাপুলের ৩৫ ভরি অলঙ্কার (১৪ লাখ টাকা), এক লাখ ৩০ হাজার টাকার ইলেকট্রনিক সামগ্রী এবং এক লাখ ১০ হাজার টাকার আসবাবপত্র ছিল নির্বাচনের সময়। সেলিনা ইসলামের ৪০ ভরি (১৬ লাখ) স্বর্ণালঙ্কার, দেড় লাখ টাকার ইলেকট্রনিক সামগ্রী এবং এক লাখ ৩০ হাজার টাকার আসবাবপত্রের তথ্য উল্লেখ রয়েছে হলফনামায়। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে সেলিনা ইসলাম এক কোটি ৩৫ লাখ টাকা মূল্যের ল্যান্ড ক্লুজার প্রাডো ব্যবহার করলেও পাপুলের কোনো গাড়ি নেই।

অন্যদিকে স্থাবর সম্পদের মধ্যে পাঁচ কাঠা অকৃষি জমি রয়েছে তার নামে। তার স্ত্রী সেলিনা ইসলামের রয়েছে (অর্জনকালীন) ৯ কোটি ৫৪ লাখ ৩৯ হাজার ৩৬০ টাকা মূল্যের দুই হাজার ৬৩২ দশমিক ১৪ শতাংশ কৃষি জমি। সেলিনা ইসলামের আরও অর্জনকালীন ১ কোটি ৫৯ লাখ ৭৪ হাজার ২৯০ টাকা মূল্যের অকৃষি জমি রয়েছে ২৫ দশমিক ৫০ কাঠা। তার মেয়ে ওয়াফা ইসলামের নামে স্থাবর সম্পদ রয়েছে (অর্জনকালীন) ১ কোটি ২৬ লাখ ৪২ হাজার টাকা মূল্যের অ্যাপার্টমেন্ট।

স্ত্রীর হলফনামায় যত সম্পদ : একাদশ জাতীয় নির্বাচনের সময় সেলিনা ইসলামের বার্ষিক আয় ছিল ১ কোটি ৫১ লাখ ২৬ হাজার ৮৩৬ টাকা। কৃষি খাত থেকে আয় ৬ লাখ। ব্যবসা থেকে আয় ১ কোটি ৪৫ লাখ ২৬ হাজার ৮৩৬ টাকা। তার ওপর নির্ভরশীলদের ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় দেখানো হয়েছে ৭৩ লাখ ৪১ হাজার ১৭৪ টাকা। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে তার একাদশ জাতীয় নির্বাচনের সময় তার নগদ অর্থ ছিল ৪ কোটি ১৫ হাজার টাকা আর পাপুলের ছিল ৩ কোটি ৮৬ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬৩ টাকা। এ ছাড়া আর্থিক প্রতিষ্ঠানে তার নামে ২০ কোটি ১০ লাখ ২৫ হাজার ৩৩৪ টাকা। আর পাপুলের নামে ছিল ৯ কোটি ৮২ লাখ ১৩ হাজার ৮২ টাকা। পাপুলের বন্ড-ঋণপত্র স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানির শেয়ার তার নামে দেখা হয় ১৬ কোটি ২০ লাখ টাকার। আর পাপুলের নামে দেখানো হয় ২২ কোটি ৯১ লাখ ৭০ হাজার টাকা।

কুয়েতে এমপি পাপুলের ১৩৮ কোটি টাকা জব্দ : অর্থ ও মানব পাচারের অভিযোগে কুয়েতে গ্রেফতার হওয়া লক্ষ্মীপুর-২ আসনের এমপি কাজী শহীদ ইসলাম পাপুল ও তার মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির হিসাব জব্দ করা হচ্ছে। এর মধ্যে মারাফি কুয়েতিয়া কোম্পানির অ্যাকাউন্টে পাঁচ মিলিয়ন কুয়েতি দিনার বা বাংলাদেশি টাকায় ১৩৭ কোটি ৮৮ লাখ ৮৩ টাকা রয়েছে। ব্যাংক হিসাব জব্দের জন্য ইতিমধ্যে কুয়েতের কেন্দ্রীয় ব্যাংকে আবেদন করেছেন সরকারি কৌঁসুলিরা। কুয়েতের পাবলিক প্রসিকিউটর অফিসের বরাত দিয়ে এসব তথ্য জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো।


Translate »