প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে (সাহেদের দুষ্কর্মের খবর)-দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন , বিপাকে প্রবাসীরা

জুলাই ১৮ ২০২০, ০৯:০৫

Spread the love

প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে (সাহেদের দুষ্কর্মের খবর)-দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন , বিপাকে প্রবাসীরা

আজকের ঝলক নিউজ: আন্তর্জাতিক

ইন্দোনেশিয়া থেকে ইতালি, আমেরিকা থেকে আফ্রিকা- অস্ট্রেলিয়া সহ সারা বিশ্বের গণমাধ্যমে এ সপ্তাহে বাংলাদেশের একটি খবরই বড় সংবাদ শিরোনাম হয়েছে- ঢাকার রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোঃ সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের নাটকীয় গ্রেফতারের ঘটনা।

করোনাভাইরাস মহামারি শুরুর পর বাংলাদেশ থেকে যত খবর এপর্যন্ত আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে এসেছে, তার কোনটিই সম্ভবত এত বেশি গুরুত্ব পায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক টাইমস এ নিয়ে যে খবরটি প্রকাশ করে তার শিরোনাম, ‍‘’বিগ বিজনেস ইন বাংলাদেশ: সেলিং ফেইক করোনাভাইরাস সার্টিফিকেটস।’’ অর্থাৎ বাংলাদেশে জাল করোনাভাইরাস সার্টিফিকেট নিয়ে বিরাট ব্যবসা ফাঁদা হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের এই খবরে বলা হয়, বাংলাদেশে এই ধরণের সার্টিফিকেটের একটা বড় বাজার আছে। কারণ ইউরোপে কাজ করে যেসব বাংলাদেশি, তারা সেখানে ফিরে যেতে উদগ্রীব। এই অভিবাসী বাংলাদেশিরা সেখানে মুদির দোকান, রেস্তোরাঁয় কাজ করে বা রাস্তায় পানির বোতল বিক্রি করে। যেসব বাংলাদেশি ইতালিতে কাজ করেন, তাদের চাকুরিস্থলে মালিকরা তাদের কাজে ফিরিয়ে নেয়ার আগে এরকম সার্টিফিকেট চাইছেন।

কাতার ভিত্তিক আল জাজিরা টেলিভশন এবং তাদের ইংরেজি ওয়েবসাইটেও এই খবরটি বড় করে প্রচার করা হয়েছে।

আল জাজিরার খবরের শিরোনাম ছিল, ‍“বাংলাদেশ অ্যারেস্টস হসপিটাল ওনার ওভার ফেইক করোনাভাইরাস রেজাল্টস।

সি,এন,এন তাদের পত্রিকার শিরোনামে লিখেছে;
বাংলাদেশের একটি হাসপাতালের মালিক নকল কোভিড -১৯ টেস্ট ব্যবহার করে $ ৩,৫০,০০০ ডলারের মতো অর্থ রোগীদের কাছ থেকে আদায় করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তারপরে তিনি দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন। পরে তাকে গ্রেফতার করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

অস্ট্রেলিয়ান ব্রডকাস্টিং সার্ভিসেস ( এস. বি. এস) তাদের শিরোনামে লিখেছে;

বাংলাদেশ হাসপাতালের কেলেঙ্কারিতে অভিবাসী শ্রমিকদের লক্ষ্যবস্তু করোনার ভাইরাস ছড়িয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে।

ইতালিয়ান সংবাদপত্রের শিরোনাম: ‍”জাল টেস্ট দিয়ে বাংলাদেশ থেকে’

এই খবরটির ব্যাপারে ইতালির সংবাদ মাধ্যমের ছিল বাড়তি আগ্রহ। ইতালির একটি পত্রিকায় বড় করে কয়েক কলামে প্রকাশিত শিরোনামটির অনুবাদ অনেকটা এরকম: “জাল সার্টিফিকেটের কল্যাণে ইতালিতে করোনাভাইরাস পজিটিভ বাংলাদেশি। চাঞ্চল্যকর গ্রেফতার: হ্যান্ডকাফ পরে জেলখানায়।”

বাংলাদেশ থেকে করোনাভাইরাস নিয়ে ইতালিতে যাওয়া বাংলাদেশিদের নিয়ে সেখানকার সংবাদ মাধ্যমে আগে থেকেই বেশ আলোচনা ছিল। এর মধ্যে ঢাকার রিজেন্ট হাসপাতাল থেকে জাল করোনাভাইরাস সার্টিফিকেট ইস্যু করা এবং এই হাসপাতালের মালিক মোঃ সাহেদকে গ্রেফতারের খবর স্বাভাবিকভাবেই ইতালির গণমাধ্যমে গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশ করা হয়।

ইন্দোনেশিয়ার একটি পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের শিরোনাম ছিল, “বাংলাদেশে হাসপাতাল মালিকরা হাজার হাজার ভুয়া কোভিড-১৯ টেস্ট করেছেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।”

কয়েক কলাম জুড়ে এই শিরোনামের সঙ্গে ফলাও করে ছাপা হয়েছে র‍্যাবের হাতে ধরা পড়া মোঃ সাহেদের ছবি।

শুধু মোঃ সাহেদের খবর নয়, বাংলাদেশে করোনাভাইরাস টেস্ট কেলেংকারির সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার জেকেজি গ্রুপের চেয়ারম্যান সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে গ্রেফতারের খবরও আছে অনেক সংবাদপত্রে।

স্প্যানিশ ভাষায় প্রকাশিত একটি নিউজ পোর্টাল নটিমেরিকার শিরোনাম: ‍“হাজার হাজার ভুয়া করোনাভাইরাস টেস্ট করার দায়ে হাসপাতাল মালিক গ্রেফতার।” এই শিরোনামের নিচের ছবিটি অবশ্য জেকেজি গ্রুপের চেয়ারম্যান সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর।

সূত্র: বিবিসি , নিউইয়র্ক টাইমস, সিএনএন, আল জাজিরা, এস,বি,এস নিউজ।


Translate »