খুবই চ্যালেঞ্জের মুখে তালেবান

সেপ্টেম্বর ১৭ ২০২০, ১৭:২৮

Spread the love

আজকের ঝলক ‍নিউজ : ১৯ বছর আগের সেপ্টেম্বরে এ যুদ্ধের শুরু।

# আর ২০২০ সালের ১২ সেপ্টেম্বর কাতারের দোহায় একই প্রতিপক্ষরা বসেছে যুদ্ধের বদলে শান্তির খোঁজে। ইতিহাসের নির্মম কৌতুকই বলতে হয় একে। কোনো এক অনাগত ইতিহাস এ রকম যুদ্ধবাজ আর কপট শান্তিবাদীদের নিশ্চয়ই হাজার হাজার বেসামরিক মানুষের খুনের দায় নিতে বলবে। তারপরও সাধারণ আফগানরা এখনই শান্তি চায়।

# কিন্তু তালেবান কী পারবে সেটা দিতে? বন্দুক হাতে পাহাড়ের ফাঁকফোকর থেকে বিদেশি প্রতি;পক্ষকে ঘায়েল করার চেয়েও কঠিন এক চ্যালেঞ্জের মুখে এবার তারা। আলোচনার টেবিলে ন্যাটো জেনারেল;রা নেই এখন। এবার স্বদেশি ভিন্নমতাবলম্বীদের মোকাবিলা করতে হচ্ছে তাদের। যুক্তিতর্ক আর আশ্বাসে নিজ দেশের বিভিন্ন মহলকে আশ্বস্ত করতে পারলেই কেবল কাবুলে ক্ষমতার ভাগ পাবে তারা।

#যুক্তরাষ্ট্রের দিক থেকে তারা এখন যে ছা;ড় পাচ্ছে, সেটা নভেম্বরের পর একই রকম না-ও পেতে পারে। ফলে নভে;ম্বরের আগেই শান্তি আলো;চনাকে এক ধাপ এগিয়ে নিতে না পারলে পুরো বিষ;য়টি দীর্ঘ সময়ের জন্য ঝুলে যাবে।

তালেবানের আপসের পর আপস :১৯ বছরের আফগান যুদ্ধে সরকারি হিসাবে বেসামরিক মানুষ মারা গেছে ৪৩ হাজার। এটা প্রত্যক্ষ সংঘাতের সরকারি হিসাব। বেসরকারি হিসাবে এই সংখ্যা কয়েক গুণ বেশি। যুদ্ধের পরোক্ষ কারণে নিহত মানুষের সংখ্যাও বিপুল। আফগান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, দীর্ঘ যুদ্ধে দুই-তৃতীয়াংশ নাগরিকই মানসিকভাবে অসুস্থ। প্রান্তিক অঞ্চলে স্বাস্থ্যব্যবস্থা অকার্যকর। অবকাঠামো বিপর্যস্ত। বিশুদ্ধ পানি ও পুষ্টির অভাবে মরছে মানুষ। ১০ লাখ আফগান দেশের ভেতরে উদ্বাস্তু। আরও ২৫ লাখ আছে আশপাশের দেশে। এ রকম একটি সমাজ যে যুদ্ধ থেকে মুক্তি পেতে মরিয়া হবে, সেটাই স্বাভাবিক। তালেবান তৃণমূলের দল; জনগণের আকাঙ্ক্ষা না বোঝার কথা নয়। ফলে ‘দখলদার শক্তি’ হলেও ন্যাটোর সঙ্গে আলোচনায় বসেছে। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি যে চুক্তি করেছে, তার ধারাবাহিকতায় এখন তাদের বসতে হয়েছে ন্যাটোর গড়া আফগান সরকারের সঙ্গে, যে সরকারের বৈধতাই একসময় তারা স্বীকার করত না।

নারীশিক্ষা মেনে নেওয়া হবে?

সব জাতিসত্তাকে এক করার চ্যালেঞ্জ

তালেবান ও ট্রাম্পের স্বার্থ যখন একাকার

এসকল বিষয় নিয়ে খুবই চ্যালেঞ্জের মুখে তালেবান

আমাদের ফেসবুক পাতা

প্রয়োজনে কল করুন 01740665545

আমাদের ফেসবুক দলে যোগ দিন


Translate »