নলছিটি পৌরসভায় ত্রানের চাল বিতরণে নেই শারীরিক দূরত্ব। পৌর কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের ঢিলেঢালা তদারকিতে বাড়তে পারে করোনার ব্যাপক সংক্রমণ

মে ২৩ ২০২০, ০৬:৩২

Spread the love

নলছিটি পৌরসভায় ত্রানের চাল বিতরণে নেই শারীরিক দূরত্ব। পৌর কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের ঢিলেঢালা তদারকিতে বাড়তে পারে করোনার ব্যাপক সংক্রমণ।

নলছিটি পৌরসভাটি দেশের অতি প্রাচীন পৌরসভা। এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় পৌরসভা। ঢাকা পৌরসভার পর নলছিটি পৌরসভা গঠিত হয়। 1865 ইং সালে নলছিটি পৌরসভা গঠিত হয়। পুরো (একশত) বছর পর 1965ইং সালে নলছিটি পৌরসভা বিলুপ্ত ঘোসনা করা হয়। বিলুপ্ত হবার বিশ বছর পর তৎকালিন সাংসদ মরহুম জননেতা জনাব আলহাজ্ব জুলফিকার আলী ভুট্টোর প্রচেষ্টায় 1985 ইং সালে আবার নলছিটি পৌরসভা পুনঃ গঠিত হয়। 1999ইং সালে বর্তমান সাংসদ জনাব আলহাজ্ব আমির হোসেন আমুর প্রচেষ্টায় পৌরসভাটিকে গ শ্রেনী থেকে খ শ্রেনীতে উন্নতি করা হয়।

আয়তন এবং জনসংখ্যাঃ আয়তনের দিক থেকে বাংলাদেশের যে কোন পৌরসভার চেয়ে পিছিয়ে নেই নলছিটি পৌরসভা। নলছিটি পৌরসভার আয়তন 24.16 বর্গ কিলোমিটার।

লোকসংখ্যা (পঞ্চাশ) হাজারের অধিক। পৌরসভার উত্তরে সুগন্ধা নদী। দক্ষিনে কুসংগল ইউনিয়ন। পুর্বে দপদপিয়া ইউনিয়ন এবং পশ্চিমে কুলকাঠী ইউনিয়ন।

উল্লেখ্য সরকার কর্তৃক দুঃস্থ মানুষের মাঝে জেলা ঈদ পূর্ব চাল বিতরণ কার্যক্রম চলছে নলছিটি পৌরসভায়। করোনা ভাইরাসের অধিক সংক্রমণের কারণে নলছিটি উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এরই মাঝে পৌরসভা কর্তৃক 2000 পরিবারের মাঝে ত্রানের চাল বিতরণ কার্যক্রমে কোনো প্রকার শারীরিক দূরত্ব পরিলক্ষিত হচ্ছে না। স্থানীয় সাংবাদিক মাসুদুজ্জামান মিতুল সশরীরে উপস্থিত থেকে আজ 23/05/2020 সকালে এ বিষয়টি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক লাইভে তুলে
ধরেন। তিনি বলেন পৌর কর্তৃপক্ষ এই চাল বিতরণ কার্যক্রমে কোনো প্রকার সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরও তেমন তৎপরতা এ বিষয়ে দেখা যায়নি। পৌর কর্তৃপক্ষ এভাবে সকলকে একত্রিত না করে ওয়ার্ড ভিত্তিক জনগণের মধ্যে চাল বিতরণ কার্যক্রমটি পরিচালিত করলে সেটি জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় ভূয়সী প্রশংসা হতো। এভাবে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অসচেতনতা চলতে থাকলে অতিমাত্রায় সংক্রমণ বাড়বে বলে সকলের আশঙ্কা।


Translate »