আম্পানের কারণে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত

১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভয়াবহ সুপার সাইক্লোন আম্পান

মে ২০ ২০২০, ০৪:৩৩

Spread the love

ঘূর্ণিঝড় আম্পান  ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে । এটি আজ বুধবার সকাল ছয়টায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৫৬৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ৫৪৫ কিলোমিটার, মোংলা সমুদ্র থেকে ৩৯০ ও পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৪১০ কিলোমিটার দক্ষিণ–পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এ কারণে মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আম্পানের প্রভাবে সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর এবং এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরাঞ্চলে ১০ থেকে ১৫ ফুটেরও বেশি উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরাঞ্চলে ১৪০ থেকে ১৬০ মিটার বেগে ঝড়ো বাতাসসহ অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে। তাই উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে থাকা নৌযানগুলোকে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে।

ঘর্নিঝড় আম্পান সিডরের চেয়ও শক্তিশালী হবে বলছেন গবেষকরা । ঘুর্ণিঝড়টি আগামী কাল সকাল থেকে বিকালের মধ্য উপকূলীয় এলাকা থেকে অতিক্রম করবে । এসময় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ২১০ থেকে ২২০ কিমি । সবচেয় ভয়েরি বিষয় হলো আগামী কাল ২০মে বিকাল ৫টায় হিরণ পয়েন্টে জোয়ার থাকবে ঐ সময় ঘুর্ণঝড় আঘাত হানলে ১০ ফুট জোয়ারে প্লাবিত হতে পারে উপকূল। এসেক্ষত্রে যেসকল এলাকায় সাগরের পানি চ্যানেল দিয়ে সরাসরি ঢোকে সেকল এলাকা ১০ ফুট পানির নীচে তলিয়ে যেতে পারে । আর লবনাক্ত পানি ঢুকে গেলে দীর্ঘদিনের জন্য ক্ষতি সাধিত হবে । পাশা-পাশি ফসল বিনষ্ট, পশুর মৃত্যু হতে পারে । এদিকে করোনার কারনে মানুষ সাইক্লোন সেল্টারে যেতে চাইছেনা সেটাও একটা ভাবার কারণ ।

১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মানে হলো : বন্দর প্রচণ্ড বা সর্বোচ্চ তীব্রতর এক সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়বে। ঝড়ে বাতাসের সর্বোচ্চ একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ কি.মি.বা তার বেশি হতে পারে।

১১ নম্বর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন সংকেত হলো : আবহাওয়ার বিপদ সংকেত প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের সাথে সকল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং স্থানীয় আবহাওয়া কর্মকর্তা পরিস্থিতি দুর্যোগপূর্ণ বলে মনে করেন।


Translate »